বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ০৬:০৩ অপরাহ্ন

আলীকদমের বিদ্যালয় দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাস ও নিরাপত্ত বিষয়ক প্রশিক্ষণ

আলীকদমের বিদ্যালয় দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাস ও নিরাপত্ত বিষয়ক প্রশিক্ষণ

নিজস্ব সংবাদদাতাঃ
আলীকদমের ‘মাল্টি পারপাস সাইক্লোন সেল্টার (এমপিসিএস)’ প্রকল্পের আওতায় ‘‘বিদ্যালয় দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাস ও নিরাপত্ত’’ র্শীষক বিষয়ক দুই দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার (১৮ ফেব্রুয়ারী) দুপুরে উপজেলা পরিষদ সভা কক্ষে অনুষ্ঠিত প্রশিক্ষণ কর্মশালাটি সমাপনী সভা হয়। ইউএসএইড অর্থায়নের সেভ দ্য চিলড্রেন এবং রাঙ্গামাটি স্থানীয় উন্নয়ন সংস্থা গ্রীন হিল এর উদ্যোগে ও আলীকদম উপজেলা প্রশাসনের সহযোগীতায় এই কর্মশালা বাস্তবায়ন হয়।

প্রশিক্ষণ কর্মশালায় বিদ্যালয় নিরাপত্তা পরিকল্পনা, জরুরী পরিস্থিতিতে শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রাখার পদ্ধতি, বাংলাদেশের দুর্যোগ ধরণ, বিল্ডিং কোড (ইমারাত নির্মাণ আইন), বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানের ভূমিকা, ইউনিয়ন, উপজেলা এবং ওয়ার্ড পর্যায়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির গঠন, দূর্যোগ সংক্রান্ত সরকারের বিভিন্ন আদেশ ও প্রজ্ঞাপন, জলবায়ু পরিবর্তন ইত্যাদি বিষয়ে উপর আলোচনা করা হয়।

আলীকদম উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মো. সায়েদ ইকবাল সভাপতিত্বে প্রশিক্ষণ কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন আলীকদম উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম। এসময় বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো. কফিল উদ্দিন, থানা অফিসার ইনচার্জ মো. কাজি রকিব উদ্দিন, সেভ দ্য চিলড্রেন সিনিয়র ম্যানেজার কিউ. এম. দিলদার মাহমুদ ও গ্রীন হিলের সমন্বয়কারী অম্লান চাকমা। এছাড়া প্রশিক্ষনের উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন সরকারি দপ্তরে কর্মকর্তা ও প্রতিনিধিগণ অংশগ্রহণকারী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। প্রশিক্ষণ কর্মশালায় ট্রেইনার ছিলেন, সেভ দ্য চিলড্রেন সংস্থার ডিআরআর ম্যানেজার মোহাম্মদ কামরুজ্জামান।

এসময় বক্তারা বলেন, এ ধরণের একটি দুর্যোগ প্রবন এলাকায় জনসচেতনতা সৃষ্টি এবং বিদ্যালয় পর্যায়ে এ ধরনের র্কমসূচী গ্রহন করার জন্য গ্রীন হিল ও সেভ দ্য চিলড্রেন কে প্রশংসা করেন। পার্বত্য এলাকায় দুর্যোগে কোন আশ্রয় কেন্দ্র না থাকায় কারণে বিকল্প হিসেবে এই প্রকল্পের আওতায়ধাীন ৭টি স্কুলের অবকাঠামোগত সংস্কার মাধ্যমে ‘আশ্রয় কেন্দ্র’ হিসেবে উন্নীত করণের উদ্যোগকে সময়োপযোগী বলে মনে করেন।

উল্লেখ্য যে, এমপিসিএস প্রকল্পটি আলীকদম উপজেলা ছাড়াও লামা ও নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায় মোট ২৮ টি বিদ্যালয়কে কেন্দ্র করে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হচ্ছে বিগত ২০১৯ সালে মে মাস থেকে।

ভালো লাগলে সংবাদটি শেয়ার করুন....

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 Bandarban Pratidin.com
Design & Developed BY CHT Technology