মঙ্গলবার, ২৭ Jul ২০২১, ০৮:২৫ পূর্বাহ্ন

আলীকদমে সেনাবাহিনী ও বনবিভাগের যৌথ অভিযানে বিপুল পরিমাণ পাথর ও পাথর ভাঙ্গার মেশিন জব্দ

আলীকদমে সেনাবাহিনী ও বনবিভাগের যৌথ অভিযানে বিপুল পরিমাণ পাথর ও পাথর ভাঙ্গার মেশিন জব্দ

হিল্লোল দত্ত ,(আলীকদম) প্রতিনিধিঃ

বান্দরবান জেলার আলীকদম উপজেলার মাতামুহুরী রেঞ্জের সংরক্ষিত বনাঞ্চলে সেনাবাহিনী ও বনবিভাগ যৌথভাবে অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমান পাথর ও পাথর ভাঙ্গার মেশিন জব্দ করেছে।

গত বুধবার (৮ জানুয়ারী) গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অবৈধভাবে পাথর উত্তোলনের খবর পেয়ে আলীকদম সেনা জোনের সহায়তায় লামা বনবিভাগের মাতামুহুরী রেঞ্জ যৌথভাবে এ অভিযান পরিচালনা করে। এ সময় বিপুল পরিমান পাথরসহ পাথর ভাঙ্গার দুটি মেশিন জব্দ করা হয় এবং পাথর উত্তোলনে নিয়োজিত শ্রমিকদের কয়েকটি অস্থায়ী আবাসস্থলও পুড়িয়ে ধ্বংস করা হয়। সেনাবাহিনী ও বনবিভাগের উপস্থিতি টের পেয়ে পাথর উত্তোলনকারী সংঘবদ্ধ অসাধুচক্র ও পাথর ভাঙ্গার কাজে নিয়োজিত শ্রমিকরা পালিয়ে যায়।

মাতামুহুরী রেঞ্জের রেঞ্জ কর্মকর্তা জহির উদ্দিন মোহাম্মদ মিনার চৌধুরী জানান, আমরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে খবর পেয়ে জানতে পারি মাতামুহুরীর সংরক্ষিত বনাঞ্চল থেকে কিছু অসাধু চক্র নির্বিচারে পাথর উত্তোলন করছে। খবর পাওয়ার সাথে সাথে আমরা আলীকদম সেনা জোনের সহায়তায় কুরুকপাতা ক্যাম্পের একটি টিমকে সাথে নিয়ে মাতামুহুরীর সংরক্ষিত বনাঞ্চলে (৮ জানুয়ারী) বুধবার সারাদিন অভিযান পরিচালনা করি। অভিযান চলাকালে আমরা মাতামুহুরীর সংরক্ষিত বনাঞ্চলের বড় বেতী ও বুঝিখালের বিভিন্ন শাখা প্রশাখা থেকে বিপুল পরিমান ভাঙ্গা পাথর, ভাঙ্গানোর উদ্দেশ্যে আনা টুকরো পাথরসহ দুটি পাথর ভাঙ্গার মেশিন জব্দ করি। এসময় পাথর উত্তোলনে নিয়োজিত শ্রমিকদের কয়েকটি অস্থায়ী আবাসস্থলও পুড়িয়ে ধ্বংস করা হয়। অভিযানে আমাদের উপস্থিতি টের পেয়ে পাথর উত্তোলনে জড়িত সবাই সরে পরাতে কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি।

এসময় তিনি আরো বলেন,আলীকদম উপজেলার মাতামুহুরী বনবিভাগের আওতায় ১ লাখ ২ হাজার ৮৫৪ একর রিজার্ভ ফরেস্ট রয়েছে। এই রিজার্ভ ফরেস্টে প্রাকৃতিক সম্পদের অভাব নেই। এই বনভূমি বাশ, গাছ, বেত ও পাথরে পরিপূর্ণ। কিন্তু কিছু অসাধু ব্যাক্তি এই সম্পদ লুটে নেওয়ার জন্য দিনরাত চেষ্টা চালিয়ে আসছে, আমরা তাদের এ চেষ্টা নস্যাৎ করে দিবো। এখন থেকে প্রতিনিয়ত এধরনের অভিযান অব্যহত থাকবে।

আলীকদম সেনা জোনের জোন কমান্ডার বলেন, মাতামুহুরীর সংরক্ষিত বনাঞ্চল গহীন অরন্যে ও প্রাকৃতিক সম্পদে ভরা। জনগনের নিরাপত্তার স্বার্থে এসব স্থানে আমাদের ক্যাম্প রয়েছে এবং সর্বদা তাদের নিরাপত্তায় নিরলস ভাবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী কাজ করে যাচ্ছে। জনগনের জানমাল রক্ষার্থে আমরা সর্বদা বদ্ধ পরিকর। বনবিভাগ সরকারী সম্পদ রক্ষার্থে আমাদের সহযোগীতা চাইলে আমরা সবসময় তাদেরকে সহযোগীতা করবো এবং নিরাপত্তা দিবো।

 

ভালো লাগলে সংবাদটি শেয়ার করুন....

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 Bandarban Pratidin.com
Design & Developed BY CHT Technology