বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ০১:২৩ পূর্বাহ্ন

নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তের শূন্যরেখায় সেতু নির্মাণ করছে মিয়ানমার

নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তের শূন্যরেখায় সেতু নির্মাণ করছে মিয়ানমার

মোঃ আবদুর রশিদ নাইক্ষ্যংছড়ি, নাইক্ষ্যংছড়ি প্রতিনিধঃ

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম ইউনিয়নের তমব্রু সীমান্তের শূন্যরেখা ঘেঁষে খালে সেতু নির্মাণ করছে মিয়ানমার।
এতে বর্ষা মৌসুমে শূন্যরেখায় বসবাসকারী রোহিঙ্গা বসতি ও বাংলাদেশের অভ্যন্তরে কৃষিজমি পানিতে তলিয়ে যাবে বলে জানান স্থানীয়রা। কক্সবাজারের জেলা প্রশাসন এরই মধ্যে বিষয়টি নজরে এনে এ ব্যাপারে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে অবগত করেছেন।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, তমব্রু সীমান্তের শূন্যরেখায় কোনারপাড়া এলাকার খালটি তমব্রু খাল হিসেবে পরিচিত। মিয়ানমারের অভ্যন্তরে কাঁটাতারের বেড়া ঘেঁষে ওই খালে একটি সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু করেছে মিয়ানমার। দু’দিন থেকে এই দৃশ্য দেখা যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন সীমান্ত এলাকার অনেক মানুষ।

শূন্যরেখায় বসবাসকারী রোহিঙ্গা নেতা দিল মোহাম্মদ জানান, শূন্যরেখা থেকে তাদের সরাতে মিয়ানমার সেনাবাহিনী নতুন নতুন কৌশল নিচ্ছে। প্রতিদিনই ফাঁকা গুলিবর্ষণ করে তাদের ভয় দেখানো হচ্ছে। রাতে কাঁটাতারের বেড়ার পাশে এসে সেনাবাহিনীর লোকজন বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছে।

তিনি বলেন, খালে নতুন করে সেতু তৈরি করছে তাদের সরানোর জন্য। সেতুটি তৈরি হলে বর্ষা মৌসুমে শূন্যরেখাসহ বাংলাদেশের অভ্যন্তরে কোনারপাড়া সীমান্ত এলাকা কৃষিজমি পানিতে তলিয়ে যাবে। ফলে এখানে আশ্রয় নেওয়া চার হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে আসতে বাধ্য হবে।

ঘুমধুম ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধি রফিক আহমদ জানান, দু’দিন ধরে প্রকাশ্যে এই খালে সেতুটি নির্মাণ করা হচ্ছে। খালের ওপর সেতু হলে স্থানীয়দের ব্যাপক ক্ষতি হবে। বর্ষা মৌসুমে খালের পানিতে প্রতিবন্ধকতা হলে এপারের কৃষিজমি ও পুরো এলাকা পাহাড়ি ঢলের পানিতে ডুবে যাবে। স্থানীয়রা এ নিয়ে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন।

কক্সবাজার বিজিবি-৩৪ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মনজুরুল হাসান খান বলেন, ‘মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ তাদের সীমান্তের অভ্যন্তরে তমব্রু খালে একটি সেতু নির্মাণ করছে। কেন এই সেতু নির্মাণ হচ্ছে, জানি না। আমরা পরিস্থিতি লক্ষ্য রাখছি। সেতু নির্মাণের কারণে বাংলাদেশ ক্ষতিগ্রস্ত হলে অবশ্যই প্রতিবাদ জানানো হবে।’

আরো জানান, সীমান্তের শূন্যরেখা থেকে ৫০ গজের ব্যবধানে মিয়ানমার যে কোনো স্থাপনা নির্মাণ করতে পারে। দু’দেশের মধ্যে এ বিষয়ে চুক্তি রয়েছে।

ককসবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক এসএম সরোয়ার কামাল জানান, তিনি নিজেই সিমান্ত পরিদর্শন করেছেন। আর এই ব্যাপারে মন্ত্রানালয়ে লিখিত ভাবে জানিয়েছেন।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেন, নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তের তমব্রু খালে নতুন করে মিয়ানমারের অভ্যন্তরে সেতু নির্মাণের বিষয়টি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে অবহিত করা হয়েছে বলে জানান।

ভালো লাগলে সংবাদটি শেয়ার করুন....

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 Bandarban Pratidin.com
Design & Developed BY CHT Technology