বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ০৬:৪৯ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
খাগড়াছড়ি গুইমারাতে আগুনে ঘর পুড়ে ছাই নাইক্ষ্যংছড়ি পাহাড় থেকে ১৩টি অস্ত্র ও বার্মিজ মদ উদ্ধার লামায় জুম ও প্রাকৃতিক বনাঞ্চলে আগুনে পুড়িয়ে দেওয়ায় রাবার কোম্পানির বিরুদ্ধে সংবাদ সন্মেলন বাইশারীতে আন্ত: প্রাথমিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা সম্পন্ন বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী নারীকে ধর্ষণকারি ফরহাদকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ বান্দরবান লেমুঝিরি পাড়ায় এক বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ত্রিপুরা নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ ৭ মাসের বকেয়া বেতন পরিশোধ এবং চাকুরী স্থায়ীকরণের দাবি জানিয়ে বান্দরবানে মানববন্ধন আলীকদমে লেকের পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু থানচি’র ইউএনও আতাউল গনি ওসমানী বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত দুস্থ রোগীদের সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন বান্দরবান রোগী কল্যাণ সমিতি
নিরাপদ সন্তান প্রসবের আপন ঠিকানা রুপসী পাড়া স্বাস্থ্য ও পরিবার কেন্দ্র

নিরাপদ সন্তান প্রসবের আপন ঠিকানা রুপসী পাড়া স্বাস্থ্য ও পরিবার কেন্দ্র

লামা সংবাদদাতাঃ
কয়েক বছর আগেও স্বাস্থ্য সেবায় জরাজীর্ণ ছিল লামা উপজেলার রুপসীপাড়া ইউনিয়নের ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র। নিয়মিত রুটিন কাজ হলেও মাতৃত্বস্বাস্থ্য সেবা ও প্রসূতি মায়েরাও অন্য রোগীদের মতো ছুটে যেতেন কক্সবাজার ও চট্টগ্রাম মেডিকেল সহ বিভিন্ন প্রাইভেট হাসপাতালে।

কিন্তু এখন বদলে গেছে এই স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের সেবার মান। প্রসূতি সেবা দানে এই কেন্দ্রটি আজ অনন্য এক দৃষ্টান্ত হয়ে উঠেছে। গর্ভবতী ও প্রসূতিদের কাছে নিরাপদ সন্তান প্রসবের আপন ঠিকানা এটি।

তারই প্রেক্ষাপটে রুপসীপাড়া ইউনিয়নের মঙ্গলবার (১১ জানুয়ারী’২২) সর্বপ্রথম প্রাতিষ্ঠানিক নিরাপদ সন্তান প্রসব (ডেলিভারী) শুরু হয়েছে এই স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের। ইতিপূর্বে কেউ কোন গর্ভবতী মা প্রাতিষ্ঠানিকভাবে নিরাপদ প্রসব করতে এ কেন্দ্রের আসে নি। এমনটি মন্তব্য করেছেন, উপজেলায় ৬নং রুপসীপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছাচিং প্রু মার্মা। তিনি আরো জানিয়েছেন, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের পাশাপাশি গর্ভবতী মাদের নিরাপদ প্রসব করতে কেন্দ্রটিকে উপযোগী করে তুলেছেন মাতৃত্ব স্বাস্থ্যসেবা মান উন্নয়নের জাতীয় প্রোগ্রাম “মামনি-এমএনসিএস” প্রকল্প। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের সাথে সমন্বয় রেখে এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করছেন সেভ দ্যা চিলড্রেন ও গ্রীন হিল সংস্থা।

বর্তমানে স্বাস্থ্য কেন্দ্রে সুনাম ছড়িয়ে পড়েছে আশপাশসহ পাশ্ববর্তী উপজেলাতেও। এখানে নিরাপদে সন্তান প্রসবের জন্য দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকে। পরিচ্ছন্ন পরিবেশে বিনা খরচে সন্তান প্রসব শেষে হাসিমুখে বাড়ি ফিরে যান মায়েরা।

কেন্দ্রটিতে পরিবার পরিকল্পনা বিভাগ থেকে এক উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার, মামনি প্রকল্প থেকে মিডওয়াইফ একজন চিকিৎসা সেবা প্রদান করছে। এছাড়া মাঠে পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক, পরিবার কল্যান সহকারী, স্বেচ্ছাসেবী তাদের নিরলস প্রচেষ্টায় এই সেবা কেন্দ্রটি আজ জনগনের কাছে অনেক জনপ্রিয়।

প্রসূতি সেবা নিতে আসার রুপসীপাড়া ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড এ মন্ডু পাড়া বাসিন্দা জিপি মার্মা জানান, ‘লোকমুখে এটার কথা শুনে এসেছি। মঙ্গলবার সকালে আমার প্রসবজনিত ব্যাথা ও পানি ভাঙ্গে যায়। দ্রুত এই কেন্দ্রের চলে আসলে নিরাপদে আমার একটি ছেলে সন্তান জন্ম হয়।”

মিডওয়াইফ রিটু চাকমা জানান, এখানে ২৪ ঘণ্টা নরমাল ডেলিভারি করানো হয়। যখনই প্রসূতি আসেন, তখনই সেবা দেওয়া হয়।

উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার প্রিয়া দে জানান, এখানে যারা আসেন, তাদের সকলকে সাধ্যমতো চিকিৎসা দেওয়া হয়। সন্তান হওয়ার পরও নিয়মিত স্বাস্থ্য সেবা ও পরামর্শ পান এখানকার রোগীরা। শুধু প্রসূতি মায়েরা নয়, অনান্য রোগীরা এখান থেকে পরামর্শ ও ওষুধ নেন। অধিক গুরুতর রোগ ও রোগীর ক্ষেত্রে উপজেলা হাসপাতালে যাওয়ার পরামর্শ দেন তারা।

 

ভালো লাগলে সংবাদটি শেয়ার করুন....

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 Bandarban Pratidin.com
Design & Developed BY CHT Technology