শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৯:০০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
পার্বত্য চট্টগ্রামে শিক্ষার মানোন্নয়নে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে সরকার কাজ করছে- এমপি দীপংকর তালুকদার চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে ট্রাক চাপায় প্রাণ গেল ২ যুবক, আহত ৩ লামায় শর্ট পিচ ক্রিকেট টুর্ণামেন্ট ফাইনাল অনুষ্ঠিত চিম্বুক পাহাড়ে য়ং ওয়াই ম্রো’র চোখ উপড়ে দিল ভাল্লুক, নাতি আহত রাঙ্গামাটিতে ইউপি সদস্য হত্যার মামলায় জেএসএস’র ১০সহ ১৮জনের বিরুদ্ধে মামলা রাঙ্গামাটি বাঘােইছড়িতে প্রকল্প অফিসে দুর্বৃত্তদের গুলিতে ইউপি মেম্বার নিহত বন্য হাতির আক্রমণে লামায় যুবতির মৃত্যু ধর্ষণ মামলায় রাঙ্গামাটিতে ইউপি চেয়ারম্যান  কারাগারে  থানচিতে হিউমেনিটারিয়ান ফাউন্ডেশন গরীব প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে বিনামূল্যে বিভিন্ন সামগ্রী বিতরণ বান্দরবান সেনাবাহিনী বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান
রাঙ্গামাটি সিবলী বন বিহারে ৩০ লাখ টাকা আত্মসাত নিয়ে এলাকাবাসীর অভিযোগ

রাঙ্গামাটি সিবলী বন বিহারে ৩০ লাখ টাকা আত্মসাত নিয়ে এলাকাবাসীর অভিযোগ

রাঙ্গামাটি সংবাদদাতাঃ
রাঙ্গামাটি শহরে রাজমনি পাড়ায় উন্নয়ন বোর্ড কতৃক ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের ৩০ লক্ষ টাকা ব্যয়ের নির্মিত “সিবলী বন বিহার” এর কাজ ২০২০ সাল এসেও শেষ না হওয়ার এলাকাবাসী ক্ষোভ, বিহার নির্মাণ দ্রুত করা হোক এবং, বরাদ্ধকৃত টাকা আত্বসাতকারী বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া জন্য আজ রবিবার দুপুরে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে চন্দ্র হংস চাকমা প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়েছে ।
তিনি প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানান, রাঙ্গামাটি রজিমনিপাড়া এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন গ্রহণ করুন। অত্যন্ত ক্ষোভ দুঃখের সাথে জানাচ্ছি যে, এলাকার মানুষের ধর্ম পালনের জন্য পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃক ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরে  “সিবলী বন বিহার” মন্দির স্থাপনের জন্য প্রাকৃত মূল্য ৩০ লক্ষ টাকা টেন্ডার দেওয়া হয়। ভবন নির্মানের কাজ ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও ২০২০ সাল শেষ পর্যায়ে এসেও কাজ সমাপ্ত হয়নি।
এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে গত মার্চ মাসে ২০২০ ইং, সকালে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের সাথে যোগাযোগ করা হলে জানা যায় ঠিকাদার উইটি মং মারমা টেন্ডারের জামানতের টাকা উত্তোলন করেছেন। কিন্ত প্রশ্ন হল বিহার পরিচালনা কমিটি এবং সুবিধাভোগীদের প্রত্যয়নপত্র এবং কাজ হস্তান্তর ছাড়া কিভাবে ঠিকাদার টাকা উত্তোলন করেছেন। তাহলে অফিস কেন টাকা উত্তোলনের অমুমতি দিল?
এলাকাবাসীর অভিযোগ ঠিকাদর কাজ শেষ না করে সব টাকা আত্বসাত করেছেন। এবিষয়ে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলীর মুজিবুল আলম এর সাথে বিহার পরিচলনা কমিটি যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, সামনে অর্থ বছরে কাজ সমাপ্ত করা হবে। কিন্তু প্রশ্ন হল বরাদ্ধ কৃত টাকা দিয়ে কাজ শেষ করা যেত, তাহলে টাকা গেল কোথায় ? কেন নতুন করে টেন্ডার দিতে হবে? জনগনের জন্য সরকারের বরাদ্ধ কৃত টাকা কে আত্বসাত করল ?
এলাকাবাসীর দাবি এর জন্য দায়ি ব্যক্তির বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক এবং সিবলী বন বিহার নির্মান কাজ অতি দ্রুত সমাপ্ত করা হোক।

ভালো লাগলে সংবাদটি শেয়ার করুন....

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 Bandarban Pratidin.com
Design & Developed BY CHT Technology