বৃহস্পতিবার, ০৬ মে ২০২১, ০৬:১১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
প্রধানমন্ত্রী’র বিশেষ উপহার পেল লামার ৩হাজার ৬শত পরিবার  বান্দরবানে সুয়ালকে রাবার ড্যাম প্রকল্পে অনিয়মে বাধা দেয়ায় শ্রমিক ও স্থানীয়দের সংঘর্ষে আহত ৯ মানছেনা প্রশাসনের জরিমানা ! অবিরাম চলছে আবাদি জমি ও পাহাড় কাটা ৬ রাউন্ড পিস্তলের গুলিসহ এক জনকে আটক করেছে নাইক্ষ্যংছড়ি পুলিশ আলীকদমে ২’শ পরিবারের মাঝে সেনাবাহিনীর ত্রাণ সহায়তা ৩ দফা দাবি নিয়ে রাঙ্গামাটিতে ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের বিক্ষোভ লামায় জেলা পরিষদের ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম শুরু কেশবপুরে মাস্ক না পরার অপরাধে ৬ ব্যক্তিকে জরিমানা থানচিতে পরিবেশ অধিদপ্তর অভিযান, পুড়িয়ে দেয়া হল পাথর ভাঙ্গা মেশিন শতবর্ষী গর্জনসহ বিভিন্ন প্রজাতি কাঠ জব্দ করেছে আলীকদম জোন
রামগড়ে বাংলাদেশ ও ভারত মৈত্রী সেতুর পরিদর্শন, চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার আব্দুল মান্নান

রামগড়ে বাংলাদেশ ও ভারত মৈত্রী সেতুর পরিদর্শন, চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার আব্দুল মান্নান

অংগ্য মারমা,খাগড়াছড়ি প্রতিনিধিঃ
খাগড়াছড়ির রামগড় উপজেলায় বাংলাদেশ ও ভারত মৈত্রী সেতু পরিদর্শন কালের দেশের জনগণকে দেশপ্রেমিক হতে বললেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার আব্দুল মান্নান। গতকাল শুক্রবার দুপুরে বন্দর এলাকায় পরিদর্শনকালে কমিশনার ফেনী নদীতে নির্মিত মৈত্রী সেতু নিরাপত্তাসহ সার্বিক বিষয়ের খোঁজ খবর নেন।

এ সময় তিনি বলেন, ১৯৭১ সালের মুক্তিযোদ্ধের রামগড় একটি ঐতিহাসিক স্থান। সেই জায়গাতে বর্তমান সরকার দেশের বন্দরগুলোর উন্নয়নে কাজ করছে । সেতু নির্মান আগে দু দেশের মাঝখানে নদী ছিল এখন ব্রীজ নির্মাণ হচ্ছে। সেতু চালু হলে বাংলাদেশ ও ভারত দু’ দেশের ব্যবসা বানিজ্য উন্নয়ন সুযোগ সুবিধা ঘটবে। রামগড় উপজেলা স্থানীয়দের পাশাপাশি খাগড়াছড়িবাসী উন্নয়ন হবে। বাংলাদেশ ও ভারত দু দেশের নাগরিক যোগাযোগ বাড়বে। তিনি আরো বলেন বাংলাদেশ একটি ছোট উন্নয়নশীল দেশ। দেশকে সবাই ভালবাসতে হবে। দেশের জনগণ দেশপ্রেমিক হতে হবে। দেশের জনসংখ্যা বেশী সেজন্য বন্দরের জন্য জমি অধিগ্রহনের সময় মন্দির, মসজিদ, কবরস্থান, শশ্মান জায়গা বাদ দিয়ে যতটুকু জায়গা প্রয়োজন শুধুমাত্র সেই জায়গা অধিগ্রহন করার বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেন। এরই ধারাবাহিকতায় রামগড় স্থলবন্দরের কনফারেন্স হল রুম নির্মানসহ অবকাঠামোগত উন্নয়নে সরকারের বিভিন্ন ধরনের উন্নয়নে পরিকল্পনা রয়েছে।

বন্দর নির্মাণে স্থানীয়দের জায়গা অধিগ্রহন করার ক্ষতিগ্রস্থদের মধ্যে আব্দুল বারেক ৯ শতক, সাংবাদিক বেল্লাল হোসেন ৩২ শতক, মনির হোসেন ৬ শতক, মুসলিম উদ্দিন (মুসা) ১৩ শতক বাড়ি অংশ টাকা পেলেও জায়গায় ক্ষতিপূরণ টাকা পায়নিই বলে জানান।

পরিদর্শনকালে খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক মো: শহিদুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) কাজী মো: চাহেল তস্তরী, ৪৩ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের উপ-অধিনায়ক মেজর হুমায়ুন কবীর, রামগড় উপজেলা চেয়ারম্যান বিশ্ব প্রদীপ কার্বারী, রামগড় সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সৈয়দ মোহাম্মদ ফরহাদ, রামগড় উপজেলার নির্বাহী অফিসার উম্মে ইসরাত, মাটিরাঙ্গার উপজেলা নির্বাহী অফিাসর বিভীষণ কান্তি দাশ, রামগড় থানা অফিসার ইনচার্জ তারেক মো: আব্দুল হান্নান, খাগড়াছড়ি সড়ক ও জনপদ বিভাগে নির্বাহী প্রকৌশলী শাকিল মো: ফয়সাল, উপ বিভাগীয় প্রকৌশলী সবুজ চাকমা , মৈত্রী সেতু-১ নির্মাণে দায়িত্ব প্রাপ্ত ভারতে নাগরিক ব্রীজ ইঞ্জিনিয়ার আশীষ দত্ত , টীম লিডার রাম নন্দন কুমারসহ সরকারী উধ্বর্তন কর্মকর্তা জনপ্রতিনিধি, স্থানীয় বাসিন্দারা উপস্থিত ছিলেন।

ভালো লাগলে সংবাদটি শেয়ার করুন....

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 Bandarban Pratidin.com
Design & Developed BY CHT Technology