বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০১:১২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
আন্তর্জাতিক নারী মানবাধিকার রক্ষাকারী দিবস উপলক্ষে বান্দরবানে গুণীজন সংবর্ধনা ও আলোচনা সভা বান্দরবানে পৃথকভাবে শান্তিচুক্তির বর্ষপূর্তি ও নাগরিক পরিষদে চুক্তির ধারা সংশোধনের দাবি লামা সরই ইউনিয়নের স্পিড ব্রেকারে টমটম উল্টে একজনের মৃত্যু  থানচিতে বিজিবি বিশেষ টহলে অস্ত্র, এ্যামোনিশন ও বিভিন্ন সরঞ্জাম উদ্ধার বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টির প্রতিবাদে রাঙ্গামাটিতে বিক্ষোভ থানচিতে কঠিন চীবর দানোৎসব লামায় এক দিনের ব্যবধানে পানিতে ডুবে দুই শিশুর  মৃত্যু  যশোর কেশবপুরে মৎস্য ঘেরের ভেড়ি থেকে গাঁজার গাছ উদ্ধার, চাষি গ্রেফতার বান্দরবানে ভাবগাম্ভীর্যের মাধ্যমে  উজানী পাড়া বৌদ্ধ বিহারে কঠিন চীবর দানোৎসব চিম্বুক পাহাড়কে বাঁচতে দিন, স্থানীয়দের উচ্ছেদ বন্ধ করুন
লামায় ব্যবসায়ী অপহরণ, মুক্তিপণ দাবী

লামায় ব্যবসায়ী অপহরণ, মুক্তিপণ দাবী

মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, বিশেষ প্রতিনিধি লামাঃ
বান্দরবানের লামা উপজেলার সদর ইউনিয়নের এক ব্যবসায়ীকে অপহরণ করেছে সন্ত্রাসীরা। অপহরণের ১দিন পর শুক্রবার (২১ ডিসেম্বর) দুপুরে অপহৃতের পরিবারের কাছে ৫০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবী করে সন্ত্রাসীরা। অপহৃত মহরম আলী (২৮) লামা সদর ইউনিয়নের বৈল্ল্যারচর পাড়ার মৃত হাসান আলীর ছেলে। একই সময় ঘিলা পাড়া হতে আরো দুইজন পাহাড়িকে নিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। শুক্রবার দুপুরে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়।

অপহৃত মহরম আলীর স্ত্রী ছফুরা বেগম বলেন, আমার স্বামী ইউনিয়নের দুর্গম ঘিলা পাড়া, পোপা হেডম্যান পাড়া, দোছড়ি পাড়া ও বদলা পাড়া হতে আদা, হলুদ, মরিচ, কলা ও বাঁশ ক্রয় করে বাজারে এনে বিক্রি করত। গত বুধবার (১৯ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় তার সাথে আমার মোবাইলে কথা হয়েছিল। তারপর থেকে আর কোন যোগাযোগ নেই। শুক্রবার দুপুরে একটি অজ্ঞাত নাম্বার (০১৮৮১ ৩১৯০৫০) হতে আমার মুঠোফোনে (০১৩০৭ ৮৯৬১৮৭) কল করে মুক্তিপণ হিসেবে ৫০ হাজার টাকা দাবী করে সন্ত্রাসীরা। সে ঘিলা পাড়ার কারবারীর ছেলে বাসু মণি ত্রিপুরার সাথে ব্যবসা করত। ঘিলা পাড়া হতে তাকে নিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। আমার স্বামীকে উদ্ধারে প্রশাসনের সহায়তা কামনা করছি।

ঘিলা পাড়ার কয়েকজন জানান, বৃহস্পতিবার রাতে মহরম আলীর সাথে পাড়ার কারবারী সতিয়া ত্রিপুরা ছেলে বাসু মণি ত্রিপুরা সহ মোট ৩জনকে নিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। পরে তাকে ২জনকে ছেড়ে দেয়, কিন্তু বৈল্ল্যারচর এলাকার মহরম আলীকে এখনো ছাড়েনি।

সদর ইউপি চেয়ারম্যান মিন্টু কুমার সেন বলেন, কয়েকদিন পর পর সন্ত্রাসীদের এই ধরনের অপরহরণ ও হামলার কারণে জন মনে যথেষ্ট উৎকন্ঠার সৃষ্টি হয়েছে। তিনি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তা কামনা করেন।

বিষয়টি উদ্বেগজনক উল্লেখ করে লামা থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ অপ্পেলা রাজু নাহা বলেন, ঘটনাস্থলটি উপজেলা সদর হতে প্রায় ২২ কিলোমিটার পূর্ব-উত্তরে অবস্থিত। স্থানটি অনেক দুর্গম। এই বিষয়ে সেনাবাহিনীর সাথে কথা হয়েছে। প্রয়োজনে যৌথ অভিযানে নামবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

ভালো লাগলে সংবাদটি শেয়ার করুন....

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 Bandarban Pratidin.com
Design & Developed BY CHT Technology